Failure to protect the doctors will create a terrible situation

ADVERTISING

Failure to protect the doctors will create a terrible situation. Bangladesh is already under severe pressure with inadequate doctors and nurses to deal with the epidemic of coronavirus.

Therefore, experts warn that if the doctors are not protected, Bangladesh will be in a terrible situation. Hundreds of doctors and nurses have already been infected with corona and one doctor has died. Maximum protection should be sought to protect the number of health workers in the country during these difficult times.

ADVERTISING

Failure to protect the doctors will create a terrible situation pic

The government has also announced the recruitment of 8,000 nurses and doctors to address the shortage of doctors and nurses. In this critical moment, the doctors are not only weakening their own lives and thinking about the family, they are also fighting to cope with the patients.

But when these health workers and doctors who are the symbol of humanity are getting infected with corona while providing services, they are being neglected by the people along with their families.

ADVERTISING

Experts say more than 400 health workers have already been affected by the corona, most of them doctors.

According to the Bangladesh Doctors Foundation (BDF), 283 doctors in government and private hospitals in Dhaka alone and 90 doctors in six other departments were infected with the coronavirus as of Sunday.

See details below …..

More News:

Narayanganj: 18 members of the doctor’s family are affected by corona

Gazipur: 32 policemen were infected with corona

Maha Ramadan and Iftar Schedule 2020

The Prime  Minister announced the closure of educational institutions till September

Bangladesh Army Job circular 2020

চিকিৎসকদের রক্ষা করা না গেলে ভয়াবহ পরিস্থিতিতে পড়বে বাংলাদেশ

মহামারি করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব মোকাবিলার ক্ষেত্রে অপর্যাপ্ত চিকিৎসক ও নার্স নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রচণ্ড চাপের মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ।

তাই বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলছেন, চিকিৎসকদের রক্ষা করা না গেলে ভয়াবহ পরিস্থিতিতে পড়বে বাংলাদেশ । ইতিমধ্যেই কয়েকশত ডাক্তার ও নার্স করোনায় আক্রান্ত হয়ে পড়েছে এবং একজন ডাক্তার মারা গেছে । এই কঠিন দূঃসময়ে দেশের যে সংখ্যক স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছে তাদের রক্ষা করার জন্য সর্বোচ্চ সুরক্ষার চেষ্টা করা উচিত ।

এছাড়া সরকার ডাক্তার ও নার্সের অপর্যাপ্ততা দূর করতে ৮ হাজার নার্স ও চিকিৎসকের নিয়োগ প্রকাশ করেছে । এই সংকটাপন্ন মুহূর্তে চিকিৎসকরা তাদের নিজেদের জীবন তুচ্ছ করে ও পরিবারের কথা ভেবে দুর্বল না হয়ে করোনা মোকাবেলাতে যোদ্ধ করে সেবা দিয়ে যাচ্ছে রোগীদের ।

অথচ এসব মানবতার প্রতিক স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকরা যখন সেবা দিতে গিয়ে করোনা সংক্রামিত হচ্ছে তখন তারা পরিবার নিয়ে মানুষের কাছে অবহেলিত হচ্ছে ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এরইমধ্যে চারশোরও বেশি স্বাস্থ্যকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে বেশিরভাগই চিকিৎসক।

বাংলাদেশ ডক্টরস ফাউন্ডেশনের (বিডিএফ) মতে, রবিবার পর্যন্ত  রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার সময় সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে শুধু ঢাকাতেই ২৮৩ জন এবং অন্য ছয় বিভাগে ৯০ জন চিকিৎসক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এছাড়া জানা যায়, গতকাল ২৮ এপ্রিল (মঙ্গলবার) নারায়ণগঞ্জে চিকিৎসকের এক পরিবারের ১৮ জন সদস্য সবাই করোনায় সংক্রামিত হয়েছে । ঠিক সেই মুহূর্তে স্থানীয় লোকজন তাদের এলাকা ছাড়া করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে । পরে ইউএনও ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা এসে মাইকিং করে স্থানীয় লোকদের শান্ত করে । সেই সাথে পরিবারটিকে সুরক্ষা দেয় । যে মুহূর্তে এসব পরিবারে সাপোর্ট ও সহমর্মীতা প্রয়োজন এমন সময় তাদের মনোবল আরও ভেঙ্গে দিচ্ছে মানুষ ।

এই মুহূর্তে  স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকদের করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য উচ্চমানের ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম, সামাজিক সুরক্ষা এবং নিরাপদ থাকার ব্যবস্থা ও মানসম্পন্ন খাবার সরবরাহ করা প্রয়োজন।

চিকিৎসকরা জানান, চিকিৎসক ও নার্সদের মানসম্পন্ন মাস্কসহ পিপিই সরবরাহ করা হচ্ছে না। চিকিৎসকরা করোনাভাইরাস থেকে নিজেদের রক্ষা করতে এন-৯৫ বা সমমানের কোনো মাস্ক পাননি। তাদের সুরক্ষার জন্য নিম্নমানের সরঞ্জাম দেওয়া হচ্ছে । নিম্নমানের এসব সরঞ্জাম ব্যবহার করে চিকিৎসকরা নিজেদেরকে ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে সুরক্ষা দিতে পারছে না।

যদি দ্রুত চিকিৎসক ও নার্সদের রক্ষার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া না হয় তাহলে অতিশিগ্রয় ভয়াবহ পরিস্থিতে পড়বে বাংলাদেশ ।

এছাড়া বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, ৫০ বছর বা তার বেশি বয়সের চিকিৎসকদের এখন ডিউটি ​​দেয়া ঝুঁকিপূর্ণ। নিরাপত্তার কথা ভেবে তাদের দায়িত্ব থেকে দূরে রাখা উচিত ।

অধ্যাপক খান আবুল কালাম আজাদ বলেন, রোগীদের চিকিৎসার ইতিহাস এবং করোনাভাইরাসের লক্ষণগুলো লুকিয়ে রাখার প্রবণতাসহ অনেক কারণেই কিছু চিকিৎসক ও নার্সরা এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

ঢামেক অধ্যক্ষ বলেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ইতিমধ্যেই চিকিৎসক ও নার্সদের বাড়ীতে যাওয়ার অনুমতি না দিয়ে, ডিউটি শেষ হওয়ার পর সরকারের ব্যবস্থাপনায় থাকার বিষয়ে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। এটি অবিলম্বে বাস্তবায়ন করা উচিত।

যেহেতু আমাদের স্বাস্থ্য কর্মীরা ভাইরাসে আক্রান্ত হতে থাকলে সাধারণ মানুষেরা চিকিৎসা পাবেন না তাই সবার আগে স্বাস্থ্যকর্মীদের পর্যাপ্ত সুরক্ষার ব্যবস্থা করা দরকার ।

Failure to protect the doctors will create a terrible situation

It is also learned that 18 members of a family of doctors in Narayanganj were infected with corona on April 28 (Tuesday). At that very moment, the locals are trying to evacuate their area. Later, UNO and administration officials came and calmed the locals by miking. It also protects the family. At a time when these families need support and sympathy, people are breaking their morale even more.

At the moment, health workers and physicians need to be provided with high quality personal protective equipment, social protection and safe living and quality food to fight coronavirus.

Doctors said that doctors and nurses were not being provided PPE with quality masks. Doctors did not find any N-95 or equivalent masks to protect themselves from the coronavirus. Inferior equipment is being provided to protect them. Physicians are unable to protect themselves from viral infections by using these substandard tools.

If measures are not taken to protect doctors and nurses quickly, Bangladesh will be in a dire situation.

Experts also say it is risky for doctors 50 years of age or older to be on duty now. They should be kept away from their responsibilities for the sake of safety.

Professor Khan Abul Kalam Azad said some doctors and nurses have been infected with the virus for a number of reasons, including the history of patients’ treatment and the tendency to hide coronavirus symptoms.

The DMCH principal said the health department had already issued a notice to the doctors and nurses to stay at the government after the end of duty, without allowing them to go home. It should be implemented immediately.

Since our health workers are infected with the virus, ordinary people will not get treatment, so first of all, health workers need to be adequately protected.

 Source: Online/ Somoy TV News

Corona VirusLive UpdateBD

Click & World update of the Corona virus here

ADVERTISING