The OC withdrawn after the funeral procession failed

ADVERTISING

The OC withdrawn after the funeral procession failed. Brahmanbaria Sarail Police Station Officer-in-Charge Shahadat Hossain Titu has been withdrawn for failing to stop the rally of millions of people at the funeral procession of Maulana Jubair Ahmed Ansari at Bratbaria’s Sarel Baretla despite the district lockdown.

On Saturday (April 18), at the behest of the police headquarters, he was withdrawn and given to the District Police Line. Assistant Police Superintendent of Police Md. Alauddin confirmed the matter.

ADVERTISING

The OC withdrawn after the funeral procession failed pic

Shahidat Hossain Titu, acting officer of the serial police station, said the law enforcers tried as hard as possible to prevent the local public from coming to the funeral. But people ignore it and create mass groups.

Meanwhile, the madrasa officials informed us that the funeral will be held in a smaller range. But they did not keep their word.

ADVERTISING

When asked about the matter, the concerned said that they could not stop the uplifted people from the passion and unwavering love of Maulana youth Ahmed Ansari after thinking about completing the funeral procession in a small range.

The common man ignored conscience and forgotten the government sanctions and fears by dominating the emotions, and attended the funeral with love and respect for Ahmed Ansari, the Maulana youth.

See details below …..

জানাজায় জনতার ঢল থামাতে না পারায় ওসি প্রত্যাহার

জেলা লকডাউন থাকা সত্বেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের বেড়তলায় মাওলানা যুবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজায় লাখো জনতার ঢল থামাতে ব্যর্থ হওয়ায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল থানার ওসি শাহাদাৎ হোসেন টিটুকে প্রত্যাহার করা হয়েছে ।

শনিবার (১৮ এপ্রিল) রাতে পুলিশ হেডকোয়ার্টাসেরর নির্দেশে তাকে প্রত্যাহার করে জেলা পুলিশ লাইনে দেওয়া হয় । জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার মো: আলাউদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ।

এদিকে দায়িত্যে থাকা সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহদাৎ হোসেন টিটু জানান, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী স্থানীয় জনসাধারণকে জানাজায় আসা আটকাতে যথা সাধ্য চেষ্টা করেছিল । কিন্তু মানুষ তা উপেক্ষা করেই গণজমায়েত সৃষ্টি করে ।

এদিকে মাদ্রাসা কর্মকর্তারা আমাদের জানিয়েছিলেন , ছোট পরিসরে জানাজা সম্পন্ন করা হবে । কিন্তু তারা তাদের কথা রাখেননি ।

পরে এ বিষয়ে জানতে চাইলে সংশ্লিষ্টরা জানান, ছোট পরিসরে জানাজা সম্পন্ন করার কথা ভাবলেও পরে  মাওলানা যুবায়ের আহমদ আনসারীর প্রতি সম্মান ও অশেষ ভালবাসার আবেগে আপ্লুত মানুষকে তারা থামাতে পারেনি ।

সাধারণ মানুষ বিবেককে উপেক্ষা করে আবেগকে প্রাধান্য দিয়ে সরকারি নিষেধাজ্ঞা ও ভয়ভীতি ভুলে মাওলানা যুবায়ের আহমদ আনসারীর প্রতি ভালবাসা ও শ্রদ্ধা নিয়ে জানাজায় অংশ নিয়েছেন ।

এতে বিশিষ্ট ব্যক্তিগণ বলেছেন, লাখো মানুষের এই গণজুয়ারে যা হবার তা হয়ে গেছে । এর জন্য আমাদের অনেক দাম দিতে হবে । এমনকি পুলিশের উপর কঠোর দায়িত্যে থাকার নির্দেশনা থাকা সত্যেও কি করে লাখো মানুষের সমাগম জমায়েত  সম্ভব হলো ? এর দায়ভার প্রশাসনকেই নিতে হবে ।

এদিকে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহদাৎ হোসেন টিটু জানান, ওই জানাজায় সরাইলের যেসব এলাকার মানুষ জমায়েত হয়েছিল সেসব এলাকা লকডাউন করা হয়েছে । সেই সাথে ওইসব গ্রামে অতিরিক্ত পুলিশ মুতায়েন করা হয়েছে ।

আগামীকাল থেকে এসব গ্রামের মানুষ ঘর থেকে বের হতে পারবেনা । এক গ্রামের মানুষ অন্য গ্রামে যেতে পারবেনা । এমনকি বাজার ঘাটেও যেতে পারবেনা । এসব গ্রামের লোকজনকে ঘরে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে এবং তাদের প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী  পুলিশের মাধ্যমে বাড়ি পৌছে দেওয়া হবে ।

এর আগে গত শুক্রবার বিকেল ৫টা ৪৫ মিনিটে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের মার্কাসপাড়ায় নিজ বাসভবনে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন মাওলানা যুবায়ের আহমদ আনসারী। রবিবার সকাল ১০টায় জানাজা শেষে সরাইল উপজেলার বেড়তলায় অবস্থিত জামিয়া রহমানিয়া বেড়তলা মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে তাকে দাফন সম্পন্ন করা হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর।

এদিকে মাওলানা যুবায়ের আহমদ আনসারীর জানাজায় লাখো মানুষ জমায়েতের ঘটনায় সারা দেশে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সেই সাথে সোশাল মিডিয়াতে সমালোচনার ঝড় উঠেছে । কি করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এতটা দায়িত্যহীন হতে পারে ? আবেগের কারনে আজ দেশবাসী অনিশ্চয়তার মধ্যে ফেলেছে ।

আইন শৃঙ্খলা কর্মকর্তারা জানান, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে ছোট পরিসরে জানাজা হবে বলে সংশ্লিষ্টরা আমাদেরকে কথা দিয়েছিলেন। কিন্তু সেটা তারা করেননি ।

The OC withdrawn after the funeral procession failed

In this, prominent people have said that this is what has happened to millions of people. We have to pay a lot for this. How could the gathering of millions of people even make it possible for the police to be strictly responsible for their duties? The responsibility should be taken by the administration itself.

Meanwhile, Sharadat Hossain Titu, officer-in-charge of the serial police station, said the areas where people had gathered at the funeral were locked down. Additional police have been deployed in those villages.

From tomorrow, the people of these villages will not be able to get out of the house. People from one village cannot go to another village. Can’t even go to the market gate. The people of these villages have been instructed to stay at home and their necessary goods will be delivered to the house by the police.

Earlier, Maulana Jubair Ahmed Ansari breathed his last at his residence at Markaspara in the city of Brahmanbaria district on Friday. He was buried at 10am at the Jamia Rahmania Barela Madrasa premises at Baratala in Srail upazila after the funeral. He was 56 at the time of his death.

Meanwhile, the gathering of tens of thousands of people at the funeral of Maulana youth Ahmed Ansari has triggered intense reactions across the country. At the same time there has been a storm of criticism on social media. How can law enforcement be so irresponsible? Today, the countrymen are feeling uncertain because of emotions.

Law enforcement officials said the concerned had told us that there would be a small funeral procession while maintaining a safe distance. But they didn’t.

 Source: Online/ Somoy TV News

Corona VirusLive UpdateBD

Click & World update of the Corona virus here

More News:

312 people infected with Corona virus in Bangladesh in 24 hours And died 07

Mobile court in disguise of the farmer

Maha Ramadan and Iftar Schedule 2020

 

ADVERTISING